রানি এলিজাবেথের শেষকৃত্যের আগে যেসব আনুষ্ঠানিকতা হবে

0
1
রানি এলিজাবেথের শেষকৃত্যের আগে যেসব আনুষ্ঠানিকতা হবে

প্রকাশিত:সোমবার,১২ সেপ্টেম্বর ২০২২।। ২৮ ভাদ্র ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল)।। ১৪ সফর,১৪৪৪ হিজরি ।।

বিক্রমপুর খবর : অনলাইন ডেস্ক :আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠেয় রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃত্যের আগে তার মরদেহ-বহনকারী কফিন এডিনবরায় এসে পৌঁছেছে।

সোমবার অনুষ্ঠেয় রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্যের আগে ১২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে। জনসাধারণ রানির কফিনটি দেখার ও তার প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ পাবেন, প্রথমে এডিনবরার সেন্ট জাইলস ক্যাথেড্রালে এবং তার পর ওয়েস্টমিনস্টার হলে। সেখানে রানির মরদেহ চারদিনের জন্য রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শায়িত রাখা হবে।রাজা তৃতীয় চার্লস এই সময়ের মধ্যে যে চারটি রাজ্য নিয়ে যুক্তরাজ্য গঠিত- সেগুলো সফর করবেন।

এই আট দিনের প্রতিদিন কী হতে যাচ্ছে তার একটি বিবরণ এখানে দেয়া হলো-

১২ সেপ্টেম্বর
রাজা দিনটি শুরু করবেন ওয়েস্টমিনিস্টার প্রাসাদের ওয়েস্টমিনিস্টার হল পরিদর্শনের মধ্য দিয়ে। এখানে হাউস অব কমন্স ও হাউস অব লর্ডস সমবেত হয়ে তাদের শোক জানাবেন। রাজা সেখানে বক্তব্য রাখবেন। এরপর রাজা চার্লস কুইন কনসর্ট ক্যামিলাকে সঙ্গে নিয়ে এডিনবরায় যাবেন।

স্থানীয় সময় বেলা ২টা ২৫ মিনিটে তিনি রানির কফিনের পেছনে হেঁটে এডিনবরার হলিরুডহাউস প্রাসাদ থেকে সেন্ট জাইলস গির্জায় যাবেন।

এডিনবরার ‘রয়াল মাইল’ বলে পরিচিত পথটি দিয়ে যাবার সময় এই শোভাযাত্রা দেখার সুযোগ পাবেন জনসাধারণ।

রানির জীবনকে উদযাপন করার জন্য সেন্ট জাইলস ক্যাথেড্রালে একটি প্রার্থনাসভার আয়োজন করা হবে বেলা তিনটায়

বিকাল ৫টা থেকে এই গির্জায় রানিকে বহনকারী কফিনটি ২৪ ঘণ্টার জন্য রাখা হবে যাতে সাধারণ মানুষ তা দেখতে পারেন। যারা দেখতে আসবেন তাদের সতর্ক করা হয়েছে যে তাদেরকে কয়েক ঘণ্টা লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে হতে পারে

এ ছাড়া রাজা চার্লস হলিরুডহাউসে যাবেন। সেখানে তিনি স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার নিকোলা স্টার্জেনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। রাজা এবং কুইন কনসর্ট এর পর স্কটিশ পার্লামেন্টে যোগ দেবেন- সেখানে সদস্যরা সমবেদনা প্রকাশ করবেন।

সেন্ট জাইলস গির্জায় যেখানে রানি এলিজাবেথকে রাখা হবে সেখানে রাজা চার্লস এবং রাজপরিবারের অন্য সদস্যরা অবস্থান করবেন।

১৩ সেপ্টেম্বর
রানির বহনকারী কফিনটি সেন্ট জাইলস গির্জা থেকে এডিনবরা বিমানবন্দরে আনা হবে সেখান থেকে বিমানে করে নর্থহোল্টে রয়েল এয়ার ফোর্স স্টেশন আরএএফ নিয়ে যাওয়া হবে। এ সময় সঙ্গে থাকবেন দ্য প্রিন্সেস রয়্যাল প্রিন্সেস অ্যান ।

কফিনটি আশা করা হচ্ছে লন্ডনে সন্ধ্যা সাতটার আগেই পৌঁছে যাবে, এর পর তা নেয়া হবে বাকিংহ্যাম প্রাসাদে যেখানে রাজা ও ক্যামিলা থাকবেন।

সেন্ট জাইলস গির্জা থেকে এডিনবরা বিমানবন্দর পর্যন্ত কোন সড়ক দিয়ে কফিনটি নেয়া হবে সেটা এখনো ঘোষণা করা হয়নি, তবে সাধারণ মানুষ কফিন বহনকারী গাড়িবহরটি দেখতে পাবেন।

দিনের শুরুতে রাজা ও ক্যামিলা বেলফাস্টে গিয়ে নর্দার্ন আয়ারল্যান্ডের সেক্রেটারি অব স্টেট ক্রিস হিটন-হ্যারিস এমপি এবং অন্যান্য দলের নেতাদের সঙ্গে দেখা করবেন।

ধর্মীয় নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাত শেষ করে রাজা চার্লস এবং ক্যামিলা সেন্ট অ্যানস গির্জায় এক প্রার্থনায় যোগ দেবেন। এরপর তারা লন্ডনে ফিরে আসবেন।

১৪ সেপ্টেম্বর
রানির কফিন বাকিংহ্যাম প্রাসাদ থেকে দুপুর দুইটার পরেই ওয়েস্টমিনিস্টার হলে নিয়ে যাওয়া হবে এবং সেখানে তা চার দিন রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শায়িত রাখা হবে।

লাইং-ইন-স্টেট হচ্ছে শেষকৃত্য অনুষ্ঠানের আগে এমন একটা আনুষ্ঠানিকতা – যেখানে সাধারণ মানুষের দেখার জন্য কফিনটি রাখা হয়।

কফিন বহনকারী বহরটি সেন্ট্রাল লন্ডনের মধ্যে দিয়ে যাবার সময় রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে জনসাধারণ তা দেখতে পাবেন । কুইন্স গার্ডেন, দ্যা মল, হর্স গার্ড, হর্স গার্ড আর্চ, হোয়াইট হল, পার্লামেন্ট স্ট্রিট, পার্লামেন্ট স্কোয়ার এবং নিউ প্যালেস ইয়ার্ড – এসব এলাকা দিয়ে শোভাযাত্রাটি যাবে।

রানির কফিনটি ইম্পিরিয়াল স্টেট ক্রাউন দিয়ে সজ্জিত থাকবে এবং রাজকীয় অশ্বারোহী বাহিনীর একটা কামানবাহী শকটে তা বহন করা হবে।

রাজা এবং রাজ পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা এর পিছনে হাঁটবেন, এই যাত্রায় সময় লাগবে ৩৮ মিনিট।

ওয়েস্টমিনিস্টার হলে রানির কফিন রাখা হবে একটি উঁচু প্ল্যাটফর্মের ওপর, যাকে বলা হয় ক্যাটাফাল্ক। কফিনের প্রতিটি কোণায় পাহারায় থাকবেন রাজপরিবারের দায়িত্বে নিয়োজিত ইউনিটে কর্মরত সৈন্যরা।

আর্চবিশপ অব ক্যানটারবারি জাস্টিন ওয়েলবি একটা সংক্ষিপ্ত প্রার্থনা করবেন। সেখানে রাজা চার্লস এবং রাজপরিবারের অন্যান্য সদস্যরা থাকবেন। এরপর হলটি সাধারণ মানুষের জন্য খুলে দেয়া হবে।

বিকাল ৫টা থেকে সাধারণ মানুষ রানির কফিনে শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন। ওয়েস্টমিনিস্টার হলটি সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর সকাল ৬:৩০ পর্যন্ত রাত-দিন ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে।

মানুষজনকে আগেই সতর্ক করা হয়েছে যে তাদের হয়ত কফিনটি দেখতে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হবে, এমনকি সারা রাত ধরেও অপেক্ষা করতে হতে পারে। তাছাড়া মানুষের লাইন সবসময় সামনে এগুতে থাকবে তাই বসার সুযোগও থাকবে খুব কম ।

১৫ সেপ্টেম্বর
এ দিন থেকে শুরু করে চার দিন রানির মরদেহ ওয়েস্টমিনিস্টার হলে রানির মরদেহ রাখা হবে সর্বসাধারণের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য। শেষকৃত্যের দিনের সকাল পর্যন্ত তা এখানে থাকবে।

ব্রিটিশ সরকারের প্রাণকেন্দ্র এই ওয়েস্টমিনস্টার প্রাসাদের সবচেয়ে পুরোনো অংশ এই হল। এটি একাদশ শতাব্দীতে তৈরি। আশা করা হচ্ছে এখানে লাখ লাখ শোকার্ত মানুষ প্রয়াত রানির প্রতি তাদের শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন।

১৬ সেপ্টেম্বর
দ্বিতীয় দিনের মতো রানির কফিন ওয়েস্টমিনস্টার হলে রাখা হবে জনসাধারণের জন্য।

রাজা ও ক্যামিলা এদিন ওয়েলসে যাবেন, এবং এই সফরের মাধ্যমে তিনি রাজা হিসেবে যুক্তরাজ্যের চারটি রাজ্য সফর শেষ করবেন।

 

১৭ সেপ্টেম্বর
ওয়েস্টমিনিস্টার হলে তৃতীয় দিনের মতো রানির কফিন সারা দিন রাখা হবে।

১৮ সেপ্টেম্বর
চতুর্থ দিনের মতো রানির কফিন রাখা হবে ওয়েস্টমিনিস্টার হলে।

১৯ সেপ্টেম্বর
রানির কফিন শোভাযাত্রার মাধ্যমে ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবিতে নেয়া হবে রাষ্ট্রীয় শেষকৃত্যের জন্য। ওই দিন যুক্তরাজ্য জুড়ে সাধারণ ছুটি থাকবে।

অতিথিদের মধ্যে থাকবেন রানির পরিবারের সদস্য, যুক্তরাজ্যের জ্যেষ্ঠ রাজনীতিবিদরা, বিশ্বের নানা দেশের রাষ্ট্র প্রধানরা, এবং রানি যেসব দাতব্য সংস্থায় সহায়তা করতেন সেগুলোর প্রতিনিধিরা।

এরপর একটি শোভাযাত্রা করে কফিনটি ওয়েস্টমিনিস্টার অ্যাবি থেকে ওয়েলিংটন আর্চে নেয়া হবে, সেখান থেকে নেয়া হবে উইন্ডসর দুর্গে।

রাষ্টীয় শববাহী যানে করে তার কফিনটি ‘লং ওয়াক’ নামের পথ দিয়ে উইন্ডসর গির্জার সেন্ট জর্জেস চ্যাপেলে নেয়া হবে এবং সেখানেই রানিকে সমাহিত করা হবে।
তথ্যসূত্র : বিবিসি

  (বিজ্ঞাপন) https://www.facebook.com/3square1

নিউজটি শেয়ার করুন .. ..               

   ‘‘আমাদের বিক্রমপুর-আমাদের খবর।

আমাদের সাথেই থাকুন-বিক্রমপুর আপনার সাথেই থাকবে!’’

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন