মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ‘মেয়র বিপ্লব বিধায়’ সম্ভবপর হয়েছে

0
13
মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার ‘মেয়র বিপ্লব বিধায়’ সম্ভবপর হয়েছে

প্রকাশিত: সোমবার,২ নভেম্বর ২০২০ইং ।।১৭ই কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)।।১৫ই রবিউল আউয়াল,১৪৪২ হিজরী।
বিক্রমপুর খবর : মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন আসন্ন। বর্তমান মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লবের ৫ বছরের মেয়াদকাল প্রায় শেষ পর্যায়ে। বর্তমান মেয়রের মেয়াদে পৌরবাসীর জন্য কর্মকান্ডের ফিরিস্তি। বিগত সময়ের মেয়র ও বর্তমান মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লবের মেয়াদকালে উন্নয়নসহ সার্বিক কর্মকান্ড নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষন। এই বিশ্লেষন করতে গিয়ে বর্তমান মেয়রের আশাতীত উন্নয়ণগাঁথা প্রকাশ সংকুচিত পরিসরে হলেও নাতিদীর্ঘ রচনায় রূপান্তরিত হবে বলে পৌরবাসী তাদের মতামত ব্যক্ত করেছেন। যার দৃষ্টান্তনুযায়ী মাত্র ৩-৪ টি উন্নয়নের চিত্র যা পৌর নাগরিকদের মুখে-মুখে ফিরে আর বিস্মিত দৃষ্টি ভঙ্গিতে সহসাই অভিমত ব্যক্ত করেন এসব কাজ ‘মেয়র বিপ্লব বিধায়’ সম্ভবপর হয়েছে।

প্রথমতঃ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার তুলনামূলক পশ্চাৎপদ সমাজ রমজানবেগ, খাসকান্দি ও মোল্লারচর এলাকা। প্রথম দুইটি এলাকাবাসীদের কাছে কল্পনাতীত ‘আলহাজ্ব মোহাম্মদ মহিউদ্দিন সড়ক’ সুপ্রতিষ্ঠিত। ইতোমধ্যেই নাগরিকরা এর সর্বোচ্চ সুফল ভোগ করছে। এলাকাবাসী জানিয়েছেন, তারা চিন্তাই করতে পারেনি এ জনপদে এমন সড়ক বাস্তবায়ন হবে। তাদের যুগ-যুগান্তরের আজন্ম লালিত বাসনা শহরে অনুপ্রবেশের একটি র্সট-কাট রাস্তা। অধিবাসীদের এই প্রাণান্ত দাবী অবশেষে আলোর মুখ দেখছে মেয়র বিপ্লবের হাত ধরে। মেয়রের প্রশংসায় পঞ্চমুখ নাগরিকরা স্পষ্ট ভাষায় অভিব্যক্তি প্রকাশ করলেন- মেয়র বিপ্লবের মাধ্যমে এই অবহেলিত জনপদকে একটি ‘সারপ্রাইজ’ পেয়েছে । তাই সময় সুযোগ আসলে এর যথপোযুক্ত প্রতিদানে পিছপা বা কুন্ঠাবোধ করবেন না, যা সুস্পষ্টতই স্থানীয় এলাকাবাসী জানিয়ে দিলেন।

দ্বিতীয়তঃ আশাতীত অপর একটি উন্নয়ণ যা বলিষ্ঠ নেতৃত্বগুন ও সমাজের প্রতি নিবেদন এবং দায়বদ্ধতা ব্যতীত সম্ভব নয়। শহরের সার্কিট হাউজের অদুরে ‘শিলমান্দি থেকে মুন্সীরহাট সড়ক’ নির্মান করে বুঝিয়ে দিয়েছেন, অত্যন্ত সুচিন্তিত মানসিকতা থাকলে এমন প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব। মেয়র তার সুদূর প্রসারী ভাবনা, আধুনিক মনস্কতা, বাস্তবাবস্থা ধারণ করার অতি মানবীয় গুনাবলী, দক্ষতা-মেধার সুসমন্বয়ে বাস্তবে পরিণত করেছেন এই সড়কটি নির্মান করে।

তৃতীয়তঃ মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার অন্তর্গত অবস্থায়ও পৌরসভার বিচ্ছিন্ন একটি বৃহৎ সমাজ চরকিশোরগঞ্জ এলাকা। জন্ম-জন্মান্তরের এলাকাবাসীর একটি দাবী শহরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার নিমিত্তে একটি ব্রীজ নির্মান। ১৯৭২ সালে টাউন কমিটি থেকে পৌরসভার উন্নীত হয় মুন্সীগঞ্জ পৌরসভা। প্রায় ৫০ বছর ধরেই তাদের এ দাবীর বাস্তবায়ণ হয়নি। পৌরসভা সূত্রে জানা যায়, মুন্সীগঞ্জ পৌসভার অর্থনৈতিক বেষ্টনীর আওতাভূক্ত থাকলে অনেক আগেই বর্তমান মেয়র অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেতু সুসম্পন্ন করে ফেলতেন। তারা জানায়, কয়েক বছর আগেও উক্ত অধিবাসীরা নৌকায় যাতায়ত করতেন। কিন্তু পৌর মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লবের প্রচেষ্টায় কালিদাস সাগর নামের শাখা নদীর ‍ওপর একটি কাঠের সেতু তৈরী করে দিয়েছেন, যা দিয়ে জনগন চলাচল করছেন। চরকিশোরগঞ্জ (মোল্লারচরে) ইতোপূর্বে কোন পাকা রাস্তা ছিল না বললেই চলে। কাঁচা রাস্তাই ছিল এলাকাবাসীদের নিয়তি। কিন্তু বর্তমান মেয়র বিপ্লবের উদ্যোগে ও প্রচেষ্টায় এলাকাটির প্রথম থেকে শেষ মাথা পর্যন্ত পাকা সড়ক নির্মান করে দিয়েছেন। উপরন্ত গ্রামটি ক্রমাগত ধলেশ্বরী ও মেঘনার ভাঙ্গনের কবলে থাকায় মেয়র ব্যক্তিগত উদ্যোগে ভাঙ্গনরোধে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের ব্যবস্থা করেন।

অপরদিকে ব্যক্তিগত ভাবে মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক, রুচিবোধ সম্পন্ন, দক্ষ-অভিজ্ঞতার মিশেলে শানিত মেধার অধিকারি, যা পুরাতন বাসষ্ট্যান্ড সংলগ্ন ‘আল্লাহর চত্ত্বর ’ও পুরাতন কাচারিতে‘আসমাউল হুসনা চত্বর’ থেকে প্রতীয়মান হয়।

দেশে করোনা ভাইরাসকালীন সরকারি সাধারণ ছুটি ও লকডাউনে মারাত্মক অর্থনৈতিক ক্ষতিতে নিমজ্জিত পৌরবাসীর মাঝে দু্‌ দফায় ১০ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য-সামগ্রী বিতরণ করেন। মেয়র ব্যতিক্রম বা ভিন্ন ষ্টাইলের মানুষ তাই খাদ্য সামগ্রী গ্রহন করতে কাউকে যেমন লাইন ধরে দাঁড়াতে হয়নি তেমনি কোথাও যেতেও হয়নি। তিনি নিজে বাড়ী বাড়ী পৌছে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন।

সদা প্রচার বিমুখ মানবিক, আধুনিক বিজ্ঞানমনস্ক, রুচিবোধ সম্পন্ন, দক্ষ-অভিজ্ঞতা সম্পন্ন মেয়র হাজী মোহাম্মদ ফয়সাল বিপ্লব বলেছেন, দেহে প্রাণ অব্দি ‘মানবতার ঝান্ডা’ উড্ডীন থেকে কখনো তা ম্লান হতে দিবেন না। হোকনা তা যতই দূর্গম, বন্ধুর পথ তা অতিক্রমে কখনো পিছপা হবেন না। মুন্সীগঞ্জ পৌরবাসীর জন্য তার জীবন উৎসর্গীকৃত করবেন বলেও জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন .. ..

‘‘আমাদের বিক্রমপুর-আমাদের খবর।
আমাদের সাথেই থাকুন-বিক্রমপুর আপনার সাথেই থাকবে!’’

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন