মুন্সিগঞ্জে কিশোরী জেসি মাহমুদ জেসিকার হত্যার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন

0
2
মুন্সিগঞ্জে কিশোরী জেসি মাহমুদ জেসিকার হত্যার বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার,৫জানুয়ারি ২০২৩।।২১ পৌষ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (শীতকাল)।।১০ জমাদিউস সানি, ১৪৪৪ হিজরি।।

বিক্রমপুর খবর : মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি : বৃহস্পতিবার বিকেলে মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনের সড়কে এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

এদিকে, একদিনের মাথায় মুন্সীগঞ্জ এভিজেএম সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থী জেসিকা আক্তার জেসি হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। জেসি হত্যাকান্ডের সাথে সরাসরি জড়িত বিজুর আরেক প্রেমিকা আদিবাকে পুলিশ গ্রেফতার করে বুধবার। এরপর পুলিশ আদিবার জবানবন্দি নেয়। স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে হত্যার নেপথ্যে বেরিয়ে আসে ত্রিভুজ প্রেম কাহিনী। আদিবা এ হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথাও স্বীকার করে।

বৃহস্পতিবার আদিবাকে হত্যা মামলার আসামি হিসেবে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হত্যা মামলার মূল আসামি বিজয় রহমান বিজুকে পুলিশ গ্রেফতার করতে পারেনি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শহরের মধ্য কোর্টগাঁও গ্রামে প্রেমিক বিজুর বাড়িতে এ হত্যার ঘটনা ঘটে। কিল ঘুসি, চাবির ছড়া দিয়ে জখম অতঃপর শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যা করা হয় জেসিকে। জেসি প্রেমিক বিজুর বাড়ির ছাঁদ থেকে পড়ে মারা গেছে বলে প্রচারণা চালায় বিজুর স্বজনরা। এরপর বিজুর আরেক প্রেমিকা আদিবাকে বুধবার পুলিশ গ্রেপ্তার করার পর হত্যাকান্ডের জট খুলে আবিদার জবানিতে।
বিজয় রহমান বিজুর সাথে জেসি ও আদিবার প্রেম চলছিলো। একসঙ্গে দুই প্রেমিকার প্রেমের কারণে জেসি হত্যার বলি হয়। বিজু শহর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি ও মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের সাবেক সদস্য আরিফুর রহমান আরিফের পুত্র। আর আদিবা হচ্ছেন মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার পঞ্চসার ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার জাহিদ রহমানের কন্যা। নিহত জেসি মহাকালী ইউনিয়নের সাতানিখিল গ্রামের সৌদি আরব প্রবাসী সেলিম দেওয়ানের কন্যা। মধ্য কোর্টগাঁও গ্রামে জেসি মায়ের সাথে ভাড়া বাড়িতে থাকতো।

জেসি মুন্সীগঞ্জ শহরের এভিজেএম সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলো। জেসি নিহত হওয়ার পরপরই বিজুর বাবা শহর ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আরিফুর রহমান মা কানিজ ফাতেমাকে পুলিশ আটক করেছিলো।

পরে মামলার এজাহারে তাদের নাম না থাকায় বুধবার সন্ধ্যায় পুলিশ বিজুর মা বাবাকে ছেড়ে দেয়। নিহত জেসির ভাই শাহরিয়ার জিদান প্রেমিক বিজু ও আদিবাকে আসামি করে বুধবার মুন্সীগঞ্জ সদর থানায় হত্যা মামলা করেছেন।

জেসিকা জেসির ভাই শাহরিয়ার জিদান জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে জেসি বাসা থেকে ঘুরতে বের হয়। এরপর বিজুর বাসায় ডেকে নেয়া হয়। সেখানে বিজু, জেসিকা ও আদিবার মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। এক পর্যায়ে জেসিকাকে তারা মারধর করে শ্বাসরোধ করে। মুমূর্ষ অবস্থায় সন্ধ্যা ৬ টার দিকে জেসিকাকে মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসে এবং জরুরি বিভাগের চিকিৎসক সৈবাল বসাক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে দেয়। এ সময় বিজু ফোনে জেসিকার ভাইকে জানায় জেসিকা বাড়ির ছাঁদ থেকে লাফ দিয়ে আহত হয়েছে। ঢাকায় নেয়ার পথে জেসিকাকে মুক্তারপুর সেতুর এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৮ টার দিকে পুনরায় মুন্সীগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে চিকিৎসক মৃতঘোষণা করে। ঢাকায় নেয়ার পথেই জেসিকা মারা যায়।

  (বিজ্ঞাপন) https://www.facebook.com/3square1

নিউজটি শেয়ার করুন .. ..               

   ‘‘আমাদের বিক্রমপুর-আমাদের খবর।

আমাদের সাথেই থাকুন-বিক্রমপুর আপনার সাথেই থাকবে!’’

নিউজ ট্যাগ:

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন