ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজে অভিভাবক সমাবেশ ও মতবিনিময় সভা

0
17
ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজে অভিভাবক সমাবেশ ও মতবিনিময় সভা

প্রকাশিত : শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ইং ।। ১১ই আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল)।। ৮ই সফর, ১৪৪২ হিজরী

বিক্রমপুর খবর : শ্রীনগর প্রতিনিধি : শ্রীনগর উপজেলার মধ্যে অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজে শিক্ষার্থীদের অভিভাবক ও এলাকার শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিবর্গের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।করোনাকালীন সময়ে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নেয়ার লক্ষ্যে সম্পূর্ণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্কুল এন্ড কলেজ প্রাঙ্গণে এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।মতবিনিময় সভাটি শনিবার সকাল ১০টায় শুরু হয়ে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে।ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের গভর্নিং বডি’র চেয়ারম্যান মাকসুদ আলম ডাবলু’র সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুন্সীগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য মাহী বি চৌধুরী।বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন।

ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজের অভিভাবক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাহি বি চৌধুরী এমপি বলেছেন- যোগ্যদের ছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ম্যানেজিং কমিটিতে কাউকে আসতে দেয়া হবে না। তিনি আরো বলেন, স্কুলের ব্যয় সংকোচন করেন অন্যান্য খাতে কিন্তু শিক্ষার জন্য কোন ব্যয় সংকোচন যেন না করা হয়। নির্বাচন করার আশায় আমি খারাপ লোকদের পাশে নিয়ে চলবো না। রোজগারই একমাত্র রাজনীতি, যুবকদের রোজগার ছাড়া রাজনীতি নেই। অনলাইনে রোজগার করার প্রশিক্ষণ দিব কয়েক মাসের মধ্যে। দেশে প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় একটি করে ভবিষ্যতের স্কুল করা হবে। এজন্য আগামী এক বছরের কর্মপরিকল্পনা দেখবো। আপনারা লিখিতভাবে জানান, আইসিটি শিক্ষক আছে কিনা, নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ আছে কিনা, নিরাপত্তা ও ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট আছে কিনা? যদি আপনাদের কর্মপরিকল্পনা থাকে তবে ভাগ্যকুল হরেন্দ্রলাল স্কুল এন্ড কলেজই হতে পারে আগামীর স্কুল। তিনি ৫ অক্টোবরের মধ্যে কর্মপরিকল্পনা দাখিল করতে বলেন। তিন স্কুলে একটি বহুতল ভবন দেয়ার বিষয়ে চেষ্টা করবেন। একটি ফ্লাড সেন্টার কয়েক মাসের মধ্যেই স্কুলে যাতে আসে সে ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতি দেন। দুই শিফট অনুমোদনের বিষয়ে তিনি খোঁজ নিয়ে অনুমোদন করানোর চেষ্টা করবেন।

 

এর আগে বিদ্যালয়ের চেয়ারম্যান মাকসুদ আলম ডাবলু সভাপতির বক্তব্যে বিদ্যালয়ের পূর্বেকার অসংগতি ও অনিয়ম এবং তাদের সময়ে গৃহিত কর্মসূচি তুলে ধরেন। তিনি প্রধান অতিথির নিকট দাবি দাওয়া তুলে ধরেন। তিনি জানান, বিদ্যালয়টি ২০১৭ সাল থেকে অনুমোদন নেয়নি এবং কলেজ শাখাটিও ২০১৮ সাল থকে অনুমোদন নেয়নি। তিনি বিষয়টি জেনে তড়িত ব্যবস্থা নিয়ে অনুমোদন করিয়েছেন।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জনাব মশিউর রহমান মামুন স্কুল এন্ড কলেজের সাথে সমসময় থাকবেন এবং বিভিন্ন রকম সহযোগিতার আশ্বাস দেন। ভাগ্যকুল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী মনোয়ার হোসেন শাহাদাৎ বলেন, এই স্কুলের প্রাক্তণ ছাত্র হিসাবে স্কুলের উন্নয়নে সবসময়ই ভূমিকা রাখবো। দাতা সদস্য ও অর্থ উপকমিটির আহবায়ক মামুন কবীর দুটি অডিট রিপোর্টে উত্থাপিত দূর্নীতির চিত্র তুলে ধরেন। অভিভাবক প্রতিনিধিদের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- এটিএম মাসুদ, রিক্তা আক্তার, মিজানুর রহমান পাঠান ও মৃত্যুঞ্জয় বর্মন। অভিভাবকদের মধ্যে মতপ্রকাশ করেন- মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম সবজল, শহিদুল ইসলাম কাড়াল, মোঃ সবুজ, আছিয়া বেগম, মনসুর আহমেদ, হাবিবুর রহমান শিকদার, শাহাদাৎ হোসেন আকাশ প্রমুখ। ব্যবস্থাপনা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- ইয়াকুব হাওলাদার, সাহিদা সুলতানা ও রফিকুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ মু. মুজিবুর রহমান তালুকদার।

অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- বিকল্প ধারার নেতৃবৃন্দ, ছাত্রলীগের ভাগ্যকুল, রাঢ়ীখাল ও বাঘড়া ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ, রাঢ়ীখাল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল বারী (বারেক), সাবেক চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লিয়াকত, সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম একুল, মুক্তিযোদ্ধা আবদুল লতিফ গাজি, মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন মুন্সি, মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল হক, শাহজাহান সরদার, ইঞ্জিনিয়ার গাজী নাসিমুর রেজা, শামসউদ্দিন বাবুল, তানভীরুল ইসলাম খান, মোতাহার হোসেন, পারভেজ কবীর, মতিউর রহমান সারেং, হানিফ বেপারী, আতিকুর রহমান অপু, রফিকুল হক, আব্দুর রহমান, ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সহসম্পাদক আমিনুল ইসলাম ডেনিশ, কুকুটিয়া ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ জনি, মোঃ মান্নান কাড়াল, ছালাম দেওয়ানসহ বহু গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। সাংবাদিকদের মধ্যে ছিলেন- শ্রীনগর প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আওলাদ হোসেন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধীর রাজবংশী, সহসভাপতি- সফিকুর রহমান, আরিফুল ইসলাম শ্যামল, তাইজুল ইসলাম উজ্জ্বল, তারেকুল ইসলাম, হাসান রহমান, রাজু আহমেদ খান প্রমুখ।

 

অনুষ্ঠানে প্রায় এক হাজার অভিভাবক অংশগ্রহণ করেন। বৃষ্টির মধ্যে ভিজে ভিজে সামিয়ানার নিচে এবং বারান্দায় স্থান নেন অভিভাবক ও অতিথিবৃন্দ। ভাগ্যকুল স্কুলের কোন অনুষ্ঠানেই এতো অভিভাক অংশগ্রহণ করেননি বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের মায়েরা বিপুলভাবে অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠান সফল করায় চেয়ারম্যান সবাইকে ধন্যবাদ দেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন- মুজিব রহমান ও জিএম খালিদ।

নিউজটি শেয়ার করুন .. ..                 

‘‘আমাদের বিক্রমপুরআমাদের খবর

আমাদের সাথেই থাকুনবিক্রমপুর আপনার সাথেই থাকবে!’’

Login করুন : https://www.bikrampurkhobor.com

আমাদের পেইজ লাইক দিন শেয়ার করুন

     জাস্ট এখানে ক্লিক করুন। https://www.facebook.com/BikrampurKhobor

                   আপনার আশেপাশে সাম্প্রতিক খবর পাঠিয়ে দিন email – bikrampurkhobor@gmail.com

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন