রত্নগর্ভা ফাতেমা খানম এর আজ কুলখানি ও দোয়া মাহফিল

0
10
রত্নগর্ভা ফাতেমা খানম এর আজ কুলখানি ও দোয়া মাহফিল

প্রকাশিত:সোমবার, ২৩ ডিসেম্বর ২০১৯ ইং ।। ৮ই পৌষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ।

বিক্রমপুর খবর :নিজস্ব ডেস্ক :আজ ২৩ ডিসেম্বর সোমবার বাদ মাগরিব  নিজস্ব বাসভবনে (চার্মভিল, ১৬৯ গ্রীন রোড, ঢাকা) ফাতেমা খানম এর আজ কুলখানি ও দোয়ার ব্যবস্হা করা হয়েছে। পরিবারের পক্ষ থেকে উক্ত দোয়ার অনুষ্ঠানে সকল আত্মীয় স্বজন, শুভাকাঙ্ক্ষী সবাইকে অংশগ্রহন করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে গত বৃহস্পতিবার ১৯ ডিসেম্বর দুপুর দুইটার দিকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিলো ৭০ বছর। সুপ্রিম কোর্টের প্রয়াত আইনজীবী খোরশেদ আলমের স্ত্রী ফাতেমা খানম ৯ ছেলেমেয়েসহ অসংখ্য শুভাকাঙ্খী রেখে গেছেন।

ফাতেমা খানম ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ তারিখে ‘দি ইঞ্জিনিয়ার্স-রত্নগর্ভা মা ২০১৯’পদক পেয়েছেন। প্রকৌশলীদের সংগঠন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (আইইবি)ঢাকা কেন্দ্র এবং দি ইঞ্জিনিয়ার্স ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে রত্নগর্ভা প্রকৌশলীদের মায়েদের এ সম্মাননা দেয়া হয় তাকে। এবং ২২ নভেম্বর ২০১৯ তারিখে  অগ্রসর বিক্রমপুর ফাউন্ডেশন,লৌহজং কেন্দ্র কর্তৃক প্রদত্ত ২০১৯ সালের রত্মগর্ভা মা সম্মাননা পেয়েছেন।

বেগম ফাতেমা খানম একজন গৃহিনী হয়েও নিরলস প্রচেষ্টায় তাঁহার নয় সন্তান আজ যার যার কর্মক্ষেত্রে সুপ্রতিষ্ঠিত। সন্তানদের জন্য নিবেদিত প্রাণ হিসেবে প্রতিটি সন্তানকে আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলেছেন। ফাতেমা খানম এর প্রথম পুত্র মোহাম্মদ ফখরুল আলম এমবিএ ও এলএলবি সম্পন্ন করে বর্তমানে পিতার ন্যায় একজন আইনজীবী। দ্বিতীয় পুত্র মোঃ ফয়সাল আলম জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নৃবিজ্ঞানে মাস্টার্স সম্পন্ন করে বর্তমানে একজন উদ্যোক্তা ব্যবসায়ী। তার স্ত্রী জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞান বিভাগে সহকারী অধ্যাপক পদে কর্মরত রয়েছেন। কনিষ্ঠ পুত্র মোঃ ফেরদৌস আলম একজন ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। সে জার্মানিতে কর্মরত আছে। তার স্ত্রীও একজন ইঞ্জিনির্য়ার। তিনি বুয়েটের ম্যাটারিয়ালস এন্ড মেটালার্জিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে লেখাপড়া সম্পন্ন করে বর্তমানে জার্মানিতে স্নাতকোত্তর অধ্যায়নরত। বড় কন্যা খায়রম্নন নাহার স্নাতকোত্তর অধ্যয়ন শেষে বর্তমানে আমেরিকা প্রবাসী। তার স্বামী একজন ডাক্তার। দ্বিতীয় কন্যা খালেদা আখতার সরকারের উপসচিব এবং বর্তমানে তিনি শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে কর্মরত। তিনি শিক্ষাগত সব পর্যায়ে প্রথম শ্রেণি অর্জন করেছেন এবং একজন ঔউঝ স্কলার্স। তার স্বামীও সরকারের একজন উপসচিব। তিনি বর্তমানে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে কর্মরত। তৃতীয় কন্যা মাহফুজা আক্তার একজন মনবুশো স্কলার। এমবিএ শেষ করে বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে অবস্হান করছেন। তার স্বামী বর্তমানে ব্যাংক অব রিয়াদে কর্মরত। চতুর্থ কন্যা ডা.খোশওয়াতুল জাহান ‘আনোয়ার খান মডার্ণ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল’এ চিকিৎসক হিসেবে নিয়োজিত। তার স্বামী একজন বিসিএস ডাক্তার। পঞ্চম কন্যা শামীমা আক্তার সহকারী অধ্যাপক পদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগে কর্মরত। সে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব জাপান থেকে অউই স্কলারশিপে তার দ্বিতীয় মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন। তার স্বামী দক্ষিণ কোরিয়া থেকে পিএইচডি ও পোস্ট ডক্টরেট সম্পন্ন করে বর্তমানে অওটই  বিশ্ববিদ্যালয়ে শিড়্গকতা করছেন। আপনার কনিষ্ঠ কন্যা রোকসানা সুমনা মাস্টার্স ও বিএড সম্পন্ন করে বর্তমানে একজন উদ্যোক্তা। তার স্বামী একটি বেসরকারি সংস্হায় কর্মরত। ফাতেমা খানম  এর প্রত্যেক সনত্মানের পাশাপাশি সনত্মানদের স্পাউসগণও প্রতিষ্ঠিত। আর প্রত্যেক সনত্মানের প্রতিষ্ঠার পেছনে রয়েছে ফাতেমা খানম ক্রমাগত প্রচেষ্টা,অসীম ত্যাগ ও বলিষ্ঠ অবদান।

ফাতেমা খানমের তৃতীয় মেয়ে মাহফুজা আক্তার অস্ট্রেলিয়ার সিডনি থেকে দেশে ফিরেছেন ২০ ডিসেম্বর এবং ছোট ছেলে ইঞ্জিনিয়ার ফেরদৌস আলম জার্মান থেকে গত ২১ ডিসেম্বর দেশে ফেরার পর ঐদিনই বাদ যোহর আজিমপুর কবরস্হানে তাকে দাফন করা হয়।

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন