বিশ্ব হাড় ক্ষয় দিবস আজ

0
0
বিশ্ব হাড় ক্ষয় দিবস আজ

প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার,২০ অক্টোবর ২০২২।।৫ ই কার্তিক ১৪২৯ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)।।২৩ রবিউল আউয়াল,১৪৪৪ হিজরি ।।

বিক্রমপুর খবর : অনলাইন ডেস্ক :আজ ২০ অক্টোবর,  বিশ্ব অস্টিওপরোসিস দিবস। অস্টিওপরোসিস হাড়ের ক্ষয়জনিত একটি রোগ। অস্টিওপরোসিস রোগের প্রতিরোধ,  নির্ণয় ও চিকিৎসা সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী সচেতনতা গড়তে প্রতি বছর এ দিনে  সারা বিশ্বব্যাপী বিশ্ব অস্টিওপোরোসিস দিবস পালন করা হয়। সর্বসাধারণকে হাড় ও পেশীর স্বাস্থ্য রক্ষায় আগাম ব্যবস্থা গ্রহণে এবং স্বাস্থ্য-কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকদেরকে অন্যদের হাড়ের স্বাস্থ্য রক্ষার দায়িত্বে উদ্বুদ্ধ করতে এই দিনটির উদযাপন।

পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, সারাবিশ্বে পঞ্চাশোর্ধ্ব বয়সের প্রতি ৩ জন নারীর মধ্যে ১ জন এবং প্রতি ৫ জন পুরুষের ১ জনের হাড়ের ক্ষয় রোগ হয়। অর্থাৎ এই রোগে আক্রান্তদের মধ্যে ৮০ ভাগই নারী এবং ২০ ভাগ পুরুষ। সম্প্রতি এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী, দেশের ৬৪ লাখ ৩১ হাজার ৮৬৬ জন হাড়ক্ষয় রোগে ভুগছে। এর মধ্যে পুরুষ ২৮ লাখ ৭৯ হাজার ৪০৬ জন। আর নারী ৩৫ লাখ ৫২ হাজার ৪৬০ জন। চিকিৎসকরা বলছেন, প্রতিকারের চেয়ে এ রোগে প্রতিরোধই উত্তম।  এ বছরের প্রতিপাদ্য- ‘স্টেপ আপ ফর বোন হেলথ’। অস্টিওপরোসিস বা হাড়ক্ষয় বলতে শরীরের হাড়ের ঘনত্ব কমে যাওয়াকে বোঝায়।

মানুষের গড় আয়ু বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নানা রোগব্যাধিও বাড়ছে। অস্টিওপোরোসিস বা হাড়ক্ষয় তেমনি একটি রোগ। চিকিৎসকরা বলছেন, হাড়ের ক্ষয় ক্যালসিয়ামের অভাবজনিত একটি রোগ। এই অসুখ হলে হাড়ের ঘনত্ব নির্দিষ্ট মাত্রায় কমে গিয়ে হাড় দুর্বল ও ভঙ্গুর হয়ে যায়। যে কোনো বয়সেই একজন মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারেন। সাধারণত বয়স্ক পুরুষ ও নারীদের ক্ষেত্রে এই রোগ বেশি হয়ে থাকে। তবে পরিসংখ্যান বলছে, পুরুষদের তুলনায় নারীদের এই রোগে আক্রান্তের ঝুঁকি বেশি। বিশেষত পঞ্চাশোর্ধ্ব মানুষের ক্ষেত্রে এই রোগের ঝুঁকি বেশি।

হাড়ের ভেতরের ঘনত্ব বাড়া-কমা একটি চলমান প্রক্রিয়া। ২০ বছর বয়স পর্যন্ত হাড়ের ভেতরের ঘনত্ব ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। ৩৫ বছর বয়স পর্যন্ত হাড়ের গঠন ও ক্ষয় একসঙ্গে একই গতিতে চলতে থাকে। ৪০ বছর বয়সের পর প্রাকৃতিক নিয়মে হাড় ক্ষয়ের মাত্রা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। হাড়ের এই ক্ষয় বেড়ে যখন নরম ও ভঙ্গুর হয়ে যায় তখন সেই অবস্থাকে অস্টিওপোরোসিস বলা হয়।

এ প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. নজরুল ইসলাম ভোরের কাগজকে বলেন, হাড়ক্ষয় রোগটি নীরব ঘাতক। এই রোগের ক্ষেত্রে বড় সমস্যা হলো হাড় না ভাঙা পর্যন্ত কোন উপসর্গ থাকে না। ফলে শুরুর দিকে বোঝা যায় না। এতে করে দুর্ভোগের সাথে সাথে চিকিৎসা ব্যয়ও বাড়তে থাকে।

এই রোগে আক্রান্তের কারণ সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ এই চিকিৎসক বলেন, ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়ামের অভাবে মূলত এই রোগ হয়। এছাড়া নারীদের ক্ষেত্রে মেনোপজ-পরবর্তী হরমোনের অসামঞ্জস্য (স্ট্রোজেন, প্রজেস্টেরন) এবং পুরুষের ক্ষেত্রে টেস্টোস্টেরন হরমোনের পরিমাণ কমে যাওয়া, ধূমপান, থাইরয়েড সমস্যা এই রোগের কারণ। এ রোগের আরেকটি উল্লেখযোগ্য কারণ হচ্ছে গড় আয়ু বেড়ে যাওয়া। ২০১৮ থেকে ২০ সাল পর্যন্ত একটি প্রবণতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে সেটি হলো প্রতি বছর দশমিক ৩৯ শতাংশ হারে আমাদের গড় আয়ু বাড়ছে। ফলে হাড়ক্ষয় রোগে আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়ছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দিনে দিনে রোগী বাড়লেও সেই তুলনায় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বাড়ছে না। ফলে রোগীদের দুর্ভোগ বাড়ছে। দেশে মাত্র অর্ধশতাধিক রিউমাটোলজিস্ট হাড় ক্ষয়সহ এসব রোগের চিকিৎসা দিচ্ছেন। এই প্রেক্ষাপটে আজ বৃহস্পতিবার নানা আয়োজনে বাংলাদেশেও পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব অস্টিওপোরোসিস দিবস’। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘স্টেপ আপ ফর বোন হেলথ’। বিশ্বব্যাপী নানা সচেতনমূলক কর্মসূচির মধ্য দিয়ে প্রতি বছর ২০ অক্টোবর দিবসটি পালন করা হয়। দিবসটি উপলক্ষে ইন্টারন্যাশনাল অস্টিওপোরোসিস ফাউন্ডেশন (আইওএফ), ন্যাশনাল অস্টিওপোরোসিস ফাউন্ডেশন (এনওএফ), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের রিউমাটোলজি বিভাগ নানা কর্মসূচির আয়োজন করেছে।

  (বিজ্ঞাপন) https://www.facebook.com/3square1

নিউজটি শেয়ার করুন .. ..               

   ‘‘আমাদের বিক্রমপুর-আমাদের খবর।

আমাদের সাথেই থাকুন-বিক্রমপুর আপনার সাথেই থাকবে!’’

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন