নলিনীকান্ত ভট্টশালীর ৭২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

0
35

প্রকাশিত:বুধবার,০৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। 

বিক্রমপুর খবর:অনলাইন ডেস্ক: ঢাকা জাদুঘরের (বর্তমানে জাতীয় জাদুঘর) প্রতিষ্ঠাতা কিউরেটর নলিনীকান্ত ভট্টশালীর ৭২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ বুধবার।জাদুঘরের এ প্রতিষ্ঠাতা ১৯৪৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি ঢাকা জাদুঘরের বাণী কুটিরে মারা যান।

মুন্সিগঞ্জ জেলার অন্তর্গত বিক্রমপুরের টঙ্গিবাড়ি উপজেলার নয়ানন্ধ গ্রামের এক শিক্ষিত ও সংস্কৃতিবান ব্রাহ্মণ পরিবারে নানাবাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন ১৮৮৮ সালের ২৪ জানুয়ারি। তার বাবার নাম রোহিনীকান্ত ভট্টশালী আর মা শরৎকামিনী। তার বাবা পেশায় ছিলেন পোস্টমাস্টার।যদিও তিনি কাকা অক্ষয় চন্দ্রের যত্নে লালিত-পালিত হন। কাকা স্কুল শিক্ষক।তার প্রাথমিক শিক্ষা পাইকপাড়া পাঠশালায়। এনট্রান্স পাস করেন ১৯০৫ সালে সোনারগাঁও হাই স্কুল থেকে। পাঁচ টাকা বৃত্তিসহ রৌপ্যপদকও পেয়েছিলেন নলিনীকান্ত ভালো ফলাফলের জন্য। ঢাকা কলেজ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হতে উচ্চতর শিক্ষাগ্রহণ করেন। তিনি ১৯১২ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় হতে এমএ পাস করেন।

১৯২২ সালে এম.এ ডিগ্রি লাভ করার পর তিনি ইতিহাসের শিক্ষক হিসেবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজ এ যোগদান করেন। সেখানে অবস্থানকালে জেলার বিভিন্ন এলাকার সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ঘটে। সারাজীবন তিনি এ সব এলাকার ইতিহাস ও প্রত্নতত্ত্ব সম্পর্কে গভীর আগ্রহী ছিলেন এবং এর বিস্মৃত অতীত সম্পর্কে তথ্য আহরণ ও অনুসন্ধানের জন্য এখানে ক্লান্তিহীনভাবে ভ্রমণ করেন।

ড.নলিনীকান্ত ভট্টশালী বাংলার প্রাচীন ইতিহাস সংরক্ষণের জন্য একটি সংগ্রহশালা নির্মাণের প্রচেষ্টা করেন। তাঁরই উদ্যোগে ১৯১২ সালে ঢাকা জাদুঘর প্রতিষ্ঠার প্রথম সম্মেলন হয়। তাঁর অক্লান্ত পরিশ্রমে ১৯১৩ সালে ঢাকা জাদুঘরের প্রতিষ্ঠা হয়। জুলাই মাসের ৭ তারিখ ঢাকা জাদুঘর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করে। ঢাকা জাদুঘরের অবৈতনিক সম্পাদক হিসেবে কাজ করছিলেন এইচ ই স্টেপলটন। তিনি এ দায়িত্ব পালনে অপারগতা প্রকাশ করেন। বাংলার গভর্নর লর্ড কারমাইকেল ১৯১৪ সালের জুলাই মাসে মাসিক ১০০/- টাকা বেতনে ঢাকা জাদুঘরের দায়িত্ব গ্রহণ করতে আহ্বান জানান ড. নলিনীকান্তকে। ড.নলিনীকান্ত প্রস্তাব গ্রহণ করেন এবং দায়িত্ব বুঝে নেন। তিনি সাজাতে থাকেন ঢাকা জাদুঘরকে। পাইকপাড়ার জগদীশ কুমার মজুমদার, বজ্রযোগিনীর রায় বাহাদুর রমেশচন্দ্র গুহ ঢাকা জাদুঘরের জন্য ১৯১৪ সালে ৮টি মূর্তি নিয়ে আসেন, যা ঢাকা জাদুঘরে সংরক্ষণ করা হয়। জীবনের ৩৩টি বছর ব্যয় করেছেন ড. নলিনীকান্ত ভট্টশালী ঢাকা জাদুঘরকে সাজাতে। বাংলা ভাষাভাষী জনগোষ্ঠীর অমূল্য প্রত্নসম্পদ সংগ্রহ করেছেন। সংগ্রহ করেছেন বিভিন্ন মূর্তি, শিলালিপি, তাম্রশাসন, পটচিত্র, পোড়ামাটির ফলক ও অসংখ্য পুঁথি। ১৯১১ সালে কুমিল্লার ১১ মাইল পশ্চিমে ভারেল্লা গ্রামে প্রাপ্ত নটরাজ মূর্তি পেয়ে তার পাঠোদ্ধার করেন। এটিই নলিনীকান্তের জীবনের প্রথম পাঠোদ্ধার। যার প্রবেন্ধ নাম “A Forgotten Kingdom of Eastern Bangla”। ১৯১২ সালে ড.নলিনীকান্ত ভট্টশালী নরসিংদীর বেলাব গ্রামে প্রাপ্ত বিক্রমপুরের ভোজ বর্মদেবের একটি তাম্রশাসনের পাঠোদ্ধার করেন। নলিনীকান্ত আরবি শিলালিপির পাঠোদ্ধারের জন্য ১৯১৮ সালে আরবি ভাষা শিক্ষা গ্রহণ করেন। তিনি বহু সুলতানী আমলের মুদ্রার আরবি হতে বাংলায় অনুবাদ করেন। তাঁর গবেষণামূলক বইগুলো হলো “কয়েনস এন্ড ক্রোনোলজি অব দি আর্লি ইন্ডিপেন্ডেন্ট সুলতানস অব বেঙ্গল”। গ্রন্থটি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের “গ্রিফিত” পুরস্কার লাভ করে। এটি ১৯১২ সালের কথা। তাঁর আরেকটি বিখ্যাত গ্রন্থ “আইকোনোগ্রাফি অব বুদ্ধিস্ট এন্ড ব্রাহমিনিক্যাল স্কালপচার ইন দি ঢাকা মিউজিয়াম”। এই গ্রন্থটির জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ড.নলিনীকান্ত ভট্টশালীকে ডক্টরেট ডিগ্রি প্রদান করে। নলিনীকান্ত অসংখ্য গ্রন্থ রচনা করেছেন। এর মধ্যে বীর সিংহ, হাসি ও অশ্রু, গোপি চাঁদ সন্ন্যাস, প্রবেশিকা ভারত ইতিকথা, প্রাথমিক ইংল্যান্ডের ইতিহাস এবং মূর্খ শতক উল্লেখযোগ্য।

তিনি গ্রামাঞ্চলের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত পর্যন্ত অবিরাম ঘুরে বেড়িয়েছেন। তথ্যের জন্য মুন্সীগঞ্জ, কোটালীপাড়া, কুমিল্লা, সোনারগাঁও,বরেন্দ্র,খুলনা,যশোর, দিনাজপুর, মালদহসহ বাংলার প্রত্যন্ত অঞ্চল। এ ভ্রমণকালে তিনি অনুসন্ধান ও আবিষ্কার করেছেন, ছবি তুলেছেন এবং বিভিন্ন সামগ্রী ও তথ্য সংগ্রহ করেছেন। এ সময় তিনি খনন কাজ ও প্রদর্শনীর আয়োজন করেছেন এবং সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণের জন্য স্থানীয়দের মনে আগ্রহ ও সচেতনতা সৃষ্টি করেছেন। অত্যন্ত সীমিত সাধ্য সত্ত্বেবও শুধু জাদুঘর সামগ্রী ও মূর্তি সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহের উদ্দেশ্যেই নয়, প্রাচীন শিলালিপিসমূহে উল্লিখিত স্থানের নাম-পরিচয় ও বিভিন্ন ঐতিহাসিক তথ্য নিশ্চিতকরণের উদ্দেশ্যেও তিনি বাংলার দুর্গম অঞ্চলগুলিতে ভ্রমণের শ্রমসাধ্য প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছেন। এরকম অক্লান্ত প্রচেষ্টার ফলেই তিনি মধ্য বঙ্গে কোটালিপাড়া, সাভার, রামপাল, বজ্রযোগিনী, সমতটে দেউলবাড়ি, বড়কামতা, ভারেল্লা, বিহারমন্ডল, লালমাই, ময়নামতী এবং ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ আরও বহু স্থানকে পন্ডিতদের কাছে পরিচিত করে তুলেছিলেন।

সাহিত্যকর্মের জন্য তেমন সুপরিচিত না হলেও ভট্টশালী বাংলা সাহিত্য সম্পর্কেও কয়েকটি বই লিখেছিলেন। তাঁর ছোট গল্প সংকলন হাসি ও অশ্রু প্রকাশিত হয় ১৯১৫ সালে। তাঁর সম্পাদিত আব্দুর শুকুর মুহম্মদের গোপীচাঁদের সন্ন্যাস-এর একটি সংস্করণ প্রকাশিত হয়েছিল ১৩২২ বঙ্গাব্দে। প্রাচীন বাংলা সাহিত্যেও তাঁর আগ্রহ ছিল। প্রাচীন বাংলা হস্তলিপি বিজ্ঞানে তিনি একজন বিশেষজ্ঞ রূপে গণ্য হতেন। প্রধানত তাঁর প্রচেষ্টায়ই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা ও সংস্কৃত পান্ডুলিপি সংগ্রহের জন্য একটি কেন্দ্র সৃষ্টি করা হয়েছিল। তাঁর কাজের জন্য তিনি বেশ কয়েকটি পুরস্কারে ভূষিত হন। তিনি বহু বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা সাহিত্য, প্রাচীন হস্তলিপিবিজ্ঞান ও ইতিহাস পড়িয়েছেন।

ইতিহাসবেত্তা,প্রত্নতত্ত্ববিদ,মুদ্রাবিজ্ঞানী,লিপিবিশারদ ও প্রাচীন বিষয়াবলি সম্পর্কে বিখ্যাত পন্ডিত এ মানুষটি ৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৭ সালে ঢাকা জাদুঘরের বানীকুটিরে মারা যান।

একটি উত্তর দিন

দয়া করে আপনার কমেন্টস লিখুন
দয়া করে আপনার নাম লিখুন